বনের পশুদের কীর্তি

বনের পশুদের কীর্তি

আজ শিশু দিবসে সকল শিশুদের জন্য নিবেদন করলাম এই কবিতাটি।

বাঘমামা বাঘমামা
গায়ে পরেছ গরমজামা?
সিংহ মশাই দুলিয়ে কেশর
নৌকো চেপে চলে ঘর।
জলহস্তীর কেবল কুস্তি
জলে ডুব দিয়ে স্বস্তি।
হাতি হাতে নিয়ে পেন
কত যে গল্প লেখেন।
কুমীরের বড় হাঁ
অজগর ঢুকে যা।
গন্ডার নাকে নিয়ে খড়্গ
হরিবোল বলে গো।
গায়ে, সাদা কালো দাগ কাটা
জেব্রারেলে চড়ে চলে হাবড়া।
জিরাফের লম্বা গলা
কানে পরেছে দুল
আর গলায় মালা।
বনের ভীমরুল ঘোরে বন্ বন্
মৌমাছি দোসর তার ছোটে হন্ হন্।
কালো কালো ভালুক
বাজিয়ে ডুগডুগি খেলছে ওরা খেলুক।
নীলগাই তাই তাই
চশমা চোখে দেখে ছাই।
হরিনের বাঁকা শিং
নাচে তবু ধিন্ ধিন্।
হনুমান শয়তান
ভেংচি কেটে করে গান।
ধবধবে সাদা তাগড়া ঘোড়া
ল্যাজ নেড়ে মাছি তাড়া।
নেকড়ে গিয়েছে পথ ভুলে
কাঁকড়া নাচে পা তুলে।
মোটা মোটা কালো বনের মোষ
করে কেবল ভোস ভোস।
হায়না দেখে নিয়ে আয়না
ভয়ে দিল দে দৌড়
আর পিছে দ্যাখে না।
ক্যাঙ্গারু চলে এল শহরে
খেলো ঝাল খিচুড়ি
দূর্গা পূজার নগরে।
মাথা গেল বিগড়ে
বনে ফিরে সেথা
দূর্গা পূজো করলো রে।
ব্যাঙ হল পুরোহিত
মন্ত্র ভুল পড়লো রে।
কি রে মোটা সজারু
তোর মুখ কেন ব্যাজারু ?
পঙ্গপাল ধরে হাল
বাঁকা শশী বেসামাল।
শেষে বলি শিশুরা
কেমন হলোছড়াটা?
হাসিমুখে পড়ে নিও
রাগ যেন কোরো না।

বন্দনা সাহা

শ্রীমতি বন্দনা সাহা। (লেখিকা/শিশুসাহিত্যিক)। মুকুন্দ পুর, কলকাতা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *